আজ ৮ ভাদ্র ১৪২৬, শুক্রবার

বাঁশ শিল্প
- অধ্যাপক আব্দুস সালাম

বাঁশ শিল্পের শিল্পী ছিলো, চাড়াল, মুচি, বেনে,
জাতির সেবক শিল্পী তারা সবাই তাদের চেনে।
কোন্ বাঁশে কি তৈরী হবে জানতো তারা ভালো,
মৎস্য ধরার যন্ত্রপাতি বুনতো ঘুনি পোলো।
কঞ্চি কেটে চেচে-ছেঁটে, তৈরী হতো ঝুড়ি,
তল্লা বাঁশের তুলতো শলা বানাইতো যে ঘুড়ি।
ভেল্কো বাঁশের চটায় হতো জোংড়া এবং চাড়ি,
একই বাঁশের চাঙ্গারি আর হাওদা গরুর গাড়ি।

তালের আঁশে বাসনি বাঁশে হইতো ঘুনি চারো,
ঐ বাঁশেতেই তৈরী হতো খুল্লে খারই আরো।
একই বাঁশে তৈরী হতো দোলনা, কুলো, ডালা,
আস্ত বাঁশের সাইজ কেটে করতো খুঁটি, চালা।
বাঁশ ফাড়িয়া তৈরী চাটাই, তৈরী চাঁচের বেড়া,
চটার বুকে পেরেক ঠুকে করতো রেলিং-বেড়া।
বাঁশের মাচা, বাঁশের খাঁচা, হইতো বাঁশের খাট,
সেই খাটেতে শুইতো চাষী, চৌকি দিতো মাঠ।

ঐ বাঁশেতে তৈরী চালন, চালতো ধানের খৈ,
গরুর গাড়ি বউ আনিতো, বেন্ধে বাঁশের ছৈ।
শেষ কাবারে হয় কবরে পাশকুলির আতালি,
বাঁশের চালে মাটির তলে, শুইবো যে সকলি।

মন্তব্য যোগ করুন

কবিতাটির উপর আপনার মন্তব্য জানাতে লগইন করুন।

মন্তব্যসমূহ