আজ ৫ অগ্রাহায়ণ ১৪২৬, মঙ্গলবার

কবিতাসমষ্টি তারিফ০২
- মাহমুদুল মান্নান তারিফ - লিমেরিক (নির্বাচিত কাব্যগ্রন্থ)

মাহমুদুল মান্নান তারিফ৪০০৬ (০৬-১৪)
লিমেরিক তাং১৩০৯২০১৬

প্রীতিডোরে বন্দি করে রাখবো তোমায় মনে
বছর ঘুরে ঈদ এলে হয় দেখা তোমার সনে
তুমি যদি যাও হারিয়ে
লক্ষজনের গা মাড়িয়ে
আমি তোমায় খোঁজে পাবো লক্ষ জনগণে।

তারিফ৪০০৭ তাং১৩০৯২০১৬
প্রলোভে প্রশম হ্রাস

প্রলোভে প্রশম হ্রাস, শুষ্কিত অন্তর,
মুখচোরে বদ-শ্বাস -মুষ্কিত মন্থর।
ভাষা মুখনিঃসৃত, যতোসব কদাচার,
স্বকর্মে প্রকটিত -ততোসব বদাচার।

অন্যের দোষগুণে, আলোচক মন্দের,
মানুষ-মানুষে বুনে, ভালোছক দ্বন্দ্বের!
সরলতা মিলে তায়, দর্শনে চাক্ষুষ,
অকপটে গিলেখায়, কর্ষণে রাক্ষুস।

টাই-কোটে সজ্জিত, দৃষ্টির নন্দন,
অপকাজে মজ্জিত, সৃষ্টির ক্রন্দন।
প্যাঁচে একপায়ে দাঁড়, শত্তুর নিষ্ঠায়,
তেড়েহাঁটে করে ঘাড়, চক্ষুর বিষ্ঠায়।

কুরবানি ঈদ এলে, জন্তুর গোস্তেই,
পূর্ণায় ডিপফ্রিজ, প্রিয়সখ পোস্তেই।
সজ্জনে একটুও, না করে যে বণ্টন,
তারমানে ত্যাগদিছে আত্মার বন্ধন!

মটকাতে চাই তার -অকপট গর্দান,
নয়তো বা যাক চলে, ঝটপট জর্দান।
সেই তার স্বজ্ঞাতির, এক বড় দুশমন,
দুশমন দূর হলে -হবে খুব খোশ মন।

তারিফ৪০০৮ তাং১৩০৯১৬
ক্ষুধাবেদনা

ধরিত্রীতে আছে কি আর ক্ষুধা চেয়ে কষ্ট?
ক্ষুধাতুর প্রাণ ওষ্ঠাগত সত্যি জীবন নষ্ট।
নেই পানীয় পুষ্টিগুণের কল-পুকুরে ময়লা
বলতো মনে বাড়িটানে চল দুপুরে পয়লা।

ভোজ্যখুঁজি ভোজ্যভুগি পাচ্ছিনা একবিন্দু
ছুটির দিনটা কাটাই বাড়ি মুছে আঁখিসিন্ধু।
অবশিষ্ট দিনগুলো বেশ গুণতে লাগে শঙ্কা
কীইবা করি এই ভেবে হই অসুস্থ আচমকা।

খেতে হলে তৃপ্তি মিটাই পয়সা লাগে বেশও
খরচ করি অমন যদি সবকিছু তো শেষও।
সবাই বলে ধরছি আমি জবটা অনেক উচ্চ তাদের কথায় উষ্ণমাথা নিজকে করি তুচ্ছ।

বেশ-ভালো না খারাপদশা ভবিষ্যতে নিঃস্ব
ভাবনা মনে সারাক্ষণই আঁধার দেখি দিশ্য।

তারিফ৪০০৯ তাং১৬০৯১৬
প্রাণের ললনা

তুমি ভালোবেসে - সদা হেসে হেসে
হৃদয় করেছো - আমার প্রশম
না করে ছলনা - প্রাণের ললনা
প্রেমেই ভরেছো, হৃদয় প্রথম।
করেছো সজীব কবির জীবন
হয়েছে কবির জীবনুদ্দীপন।।

তুমি তো পূরবী - ছড়িয়ে সুরভী
ঘেরাণে ভরেছো, আমার আলয়
সুবাসে তোমার - প্রোজ্জ্বল আমার
পরাণ হয়েছে, তোমার আলোয়
আমি পেয়েছি তোমার সৌরভ
তোমাকে নিয়ে আমার গৌরব।

আমার সুকেশা - তোমার সুবেশা
আমাকে করেছে, অতি বিমোহন
তুমি যে অচিনা - অতিথি নবীনা
তোমার জীবনে, অতি বিনোদন।
তুমি যে আমার জীবনের সাথি
উচাটন মনে জ্বালিয়েছো বাতি।

তারিফ৪০১০ তাং১৯০৯১৬
অসুখ স্থাপন

অবসিত নয় ফের, উপস্থাপন
নিরবধি হৃদ্যেই, অসুখ স্থাপন
স্খলিত এ দু'চাকার, মাটির গাড়ি,
কেসমত রব হেনো, নিলেন কাড়ি।

এনতার প্রাচুর্যে,না ঝুঁকা এ মন,
ঝ্যাঁটা সয় বক্ষয়, রসালো বচন!
কুৎসা অহর্নিশ, দুর্জন রটে
মর্মের প্রত্যাশা, সে কেন্দ্রে ঘটে!!!

তারিফ৪০১১ তাং২১০৯১৬
জাগরণগান Tarif'sSong11

ক্ষোভের বিস্ফোরণ, বোমার আওয়াজে,
শঙ্কিত স্তব্ধিত জনপদ,
বুকফাটা আহাজারি, নির্যাতিত শিশু নারী,
ঘুমন্ত উম্মত আহমদ।

দেশান্তর বেদখল, মুসলিম হাত ছাড়া,
দিশেহারা হয়ে আজ, কাঁদছে ঘুরছে,
নাই নাই ঠাঁই নাই, কোনো দেশে,বাস নাই,
সাম্রাজ্যবাদীরা হাসছে নাচছে।

ইরাক-সিরিয়া, জর্জিয়া-লিবিয়া,
বেদখল ভূস্বর্গ, কাশ্মীর-আফগান,
ডুবন্ত ইসলাম, ঘুমন্ত মুসলিম,
জাগ্রত দুনিয়ার কাফের বেইমান।

মিল্লাতে ইবরাহিম, জাগবে কি জাগবেনা?
আমার এই প্রশ্নের, উত্তর চাই,
মুসলিম দুনিয়া গড়ে তোলুন ঐক্য,
কুল্লু মুশরিকের নিস্তার নাই।

তারিফ৪০১২ তাং২১০৯১৬
ত্রিশবছরের শেষের সাতে

ত্রিশবছরের শেষের সাতে যুক্ত সকল কষ্ট
অভিরুচির অভাব খুবই জীবন পুরাই নষ্ট।
শহর-গঞ্জের খাবার খেয়ে নিবৃত না ক্ষুধা
পয়সা অনেক ব্যয় করেও, অসুস্থ বেহুদা।

নীরব ঝরে অশ্রুমালা, কেউনা করে আদর
শৈত্যএল হাড্ডিকাঁপা কেউনা পরায় চাদর।
স্নেহভরে হাত দিয়ে যে কেউনা বুলায় মাথা
দুঃখ-কষ্টে মলিন হলো এই জীবনের পাতা।

পিতামাতার স্নেহভরা আমার সাতের শৈশব পড়লে মনে ব্যথালাগে স্মৃতিগুচ্ছ সেই সব।
ত্রিশবছরের প্রথম-সাতে পিতা গেলে কবর
আমার বয়স কম হলেও বেশি ছিল সবর।

নেহাত বৃদ্ধা মাকে পেয়েই শান্তি বুকে পাচ্ছি
আমার মায়ের সুস্থচলা রব সকাশে চাচ্ছি।

তারিফ৪০১৩ তাং২৩০৯১৬
লিমেরিক

জ্ঞানবান লোক সচেতন হোক দেখুক ভালো-মন্দ,
সমাজ গড়ুক নামাজ পড়ুক থাকুক না যে অন্ধ।
সব বিষয়েই সন্দ
বদ স্বভাবের গন্ধ
লড়ুক বিবেক নইলে অনেক উঠবে পাপি স্কন্দ।

তারিফ৪০১৪ তাং২৪০৯১৬
বলবে সখি!

ফাগুন হাওয়া বাসতে ভালো বলে গেলো,
সে গুণটা কী তোমার মাঝে খোঁজে পেলো!
জানতে চাচ্ছে হৃদয়খানা বলবে সখি,
ভাবছি মনে নীরব একা বললো ওকি?

ৃমনটা দিয়ে শুনতে তুমি বসবে কাছে!
তোমাতে কী আমার প্রেমের কমি আছে?
তারপরেও বললো কেনো ফাগুন এমন!
বলবে সখি তোমার মাঝে সেগুণ কেমন!

Mahmudul Mannan Tarif2
TarifVolume2cd 01715357517

মন্তব্য যোগ করুন

কবিতাটির উপর আপনার মন্তব্য জানাতে লগইন করুন।

মন্তব্যসমূহ