আজ ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, মঙ্গলবার

অভিসারিকা
- SUDIP KUMAR SINHA - অভিসারিকা

অভিসারিকা
সুদীপ সিনহা
আজ আমি অভিসারিকা
একটি একটি পয়সায় পদস্খলনের
শব্দের মতো চেনে লোকে আমায়-
আজ আমার নাম গেছে
লোকে ভুলে।
বাপ মায়ে দিয়েছিল
কোনো নাম কোনো একদিন।
অতি যতনের সাথে হায়!
মিলাইছে সেই নাম
দুঃস্বপ্ন সম-
আজি সল্প রাত্রি বাসে।
আজি রাস্তার পাশে পাশে,
হয়তো আমায় দেখে হাসে।
কেউ চকচকে
চক্ষু শানায়-
ধার চকচকে থাবা শানায়-;
শুধু শুধু বিনি পয়সায়
কিনবার ছক কষে।
হায়রে বিধাতা----
আজি জীবন চৈত্রমাশে
এ মাঠেও ফুটেছিল
প্রেমের বকুল।
তার দাম দিতে দিতে
আর জীবনের পরীক্ষা
নিতে নিতে-
কখন ফুরিয়ে গেলাম
আর কুড়িয়ে নিলাম,
স্মৃতির ক খানা নুড়ি পাথর।
আর সে গুলোকে
নাড়াই চড়াই আর ভাবি
হ্যাঁ, ভালো আছি বটে,
ভালোই তো!
সকলের কপালে কি জোটে
এমনি সুখের প্রণয়!
যেখানে নব নব পতীত্বের
স্বাদে-------
যন্ত্রনা,নিকড়ে নিকড়ে ঝরে।
নারীত্ব ,গুমরে গুমরে মরে।
জানি-
তোমরা সবাই হাসছো
আঙুল তুলছো-
বাঃ রে পসারিনী।
শ্যামলী না কমলি-
তোর বাড় বেড়েছে খুব!
পায়ের তলায় থাকার জিনিস
দেহের তলায় থাকার জিনিস
জুতোর তলায় রাখার জিনিস-
তুই কি স্পর্ধায় তুলিস মুখ;
জানিস এই স্পর্ধার দাম-
মৃত্যু---
হায়রে পুরুষ- হায়রে বিধাতা
মৃত্যু-
আর কত মৃত্যুর
আলিঙ্গনে মারবে আমায়?
এক মৃত্যুর আলিঙ্গন থেকে
অন্য মৃত্যুর কোলে।
বদলাই রোজ।
রোজ আসি গান গাই
রোজ তার দাম পাই।
নিত্য ভোজ
আমিযে ভোগের জিনিস।
শুধু ভোগ -নারীর জীবন।
ভোগের জন্য নারী।
নারীর জন্য ভোগ নয়।
তবুও আমি মা হতে পারতাম।
মা----মা-----
হায় ----তখনই বেজে ওঠে।
আমি যে ভোগের জিনিস
নারী আমি পসারিনী।
পুরুষের ভোগের জন্য
বলীপ্রদত্ব।
লোভে লালসায় উন্মাদনায়,
পরিবেশনায়,পরীতৃপ্তিতে।
তবু শোনো হে বিধাতা,শোনো-
আমি জানিনা তুমি জানো কিনা,
কিন্তু আমাকে নস্ট করেছে
কোনো পুরুষ।
আজও আমার মধ্যে
গুমরে ওঠে কোনো মা-
মা হবার আকাঙ্খা।
আজও শিরায় শিরায়।
শিয়রে শিয়রে কাঁদে।
আমি মৃত্যুর ভয় করিনা
জীবনের সাধও করিনা।
আমার অবস্থার প্রতিবাদ ও করিনা।
আমি শুধু;শুধুমাত্র
জিজ্ঞাসা রেখে যাই,
নব প্রজন্মের গণদেবতার কাছে।
তোমাদের মাঝে,
আজও কি কোনো মা
অবশেষ আছে?
কোনো নারীই কি পারেনা
হতে কিছুক্ষনের মা।
মুছতে পারেনা ,ভোগের যন্ত্রনা।
হে অনন্ত,
নিজেদের দিকে
চেয়ে দেখুন
একবার দেখুন-
একবার দেখুন।

মন্তব্য যোগ করুন

কবিতাটির উপর আপনার মন্তব্য জানাতে লগইন করুন।

মন্তব্যসমূহ