আজ ২৬ অগ্রাহায়ণ ১৪২৬, মঙ্গলবার

সন্ধ্যার চাওয়া-পাওয়া
- মোহাম্মদ আবদুল্লাহ মজুমদার - নুতুন

কী অদ্ভুদ জীবনের ধারণকারী আমরা!
প্রত্যেকদিনের সকালগুলো হয়
আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জের ও আতঙ্কময়।
অথচ সকালবেলার প্রতিটি অনুভূতিই হলো নতুন।
নতুন আলো, ঘাসের ডগায় নতুন শিশির
নতুন পাখির কলতান আরো কতো কি।
তবুও সকালগুলোতে আমরা আতঙ্কে থাকি
প্রতি সকালে আমাদের সবার জন্য অপেক্ষা করে
একেকটি রণ প্রস্তুতি।
কারন সবাই তখন বিভোর থাকে
ভরপুর ক্ষুদা ও তৃষ্ণায়।
হয়ত নতুন কোন দুঃসংবাদও
আমাদের জন্য অপেক্ষা করতে পারে।
শূন্য হবার সম্ভাবনা থাকে জীবনের কোন একটি অংশ।
কিন্তু জীবনের প্রতিটি সন্ধ্যা
আমাদের জন্য কতো নির্মল আর মসৃণ
সারাদিনের সকল সফলতা আর ব্যর্থতাকে মেনে নিয়ে
প্রত্যেক সন্ধ্যায় স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলি আমরা।
সন্ধ্যায় ভুলে যাই জীবনের সঙ্গে যতো যুদ্ধ
যতোই হলো সারাদিন এ জীবন রুদ্ধ।
সন্ধ্যায় নিঃশেষ হয়ে যায়
সকালের এলোমেলো ভাবনা
আর ক্লান্ত দুপুরের অজ¯্র সম্ভাবনা
হোক সে সফলভাবে নাহয় ব্যর্থতার অনলে।
আমরা যতো বিষন্ন হই সকালের দীর্ঘশ্বাসে
আবার সতেজ হয়ে যাই সন্ধ্যার নিঃশ্বাসে।
অতএব সন্ধ্যা আমাদের জীবন দেয়
আশা জাগায়, স্বপ্ন দেখায়
আর মন ভরিয়ে দেয় ক্ষুদা ও তৃঞ্চাহীন
পাখির কলতানের আমেজে।
সন্ধ্যায় বুঝে নেয় সবাই
যার যার চাওয়া-পাওয়ার হিসাব।
সন্ধ্যায় কারো কোন চিন্তা থাকে না।
সবাই তখন দ্বিধা ও শঙ্কাবিহীন।

মন্তব্য যোগ করুন

কবিতাটির উপর আপনার মন্তব্য জানাতে লগইন করুন।

মন্তব্যসমূহ