আজ ২১ আষাঢ় ১৪২৭, রবিবার

আক্ষেপ
- শুভ্রেন্দু শেখর গায়েন

এক গাঁয়েতে বাস দুজনার নিত্য দেখা বাঁধে দৃষ্টি বাণের বৃষ্টি ভিজে পড়লো প্রেমের ফাঁদে৷ সেদিন বালা ধরলো আড়ি চাই না এমন সুখ আজ যদি না করছো বিয়ে দেখবে মরা মুখ। ঘর ছেড়ে তাই চললো দুজন অজানা উদ্দেশে পিসতুতো এক দিদির বাড়ি উঠলো অবশেষে৷ ভায়ের সে দুর্দশা দেখে জাগলো দিদির ব্যথা মামার কাছে পৌঁছে দিলো সকল কীর্তি কথা। বউ সাজিয়ে রাখলো দিদি বুঝলো কনের মন, আসলো যত পড়শি আরো বন্ধু, আপন জন৷ বরের বাড়ির আপত্তি নেই, কনের পিসে যিনি ফিরিয়ে নেবার সাধ্য মতন চেষ্টা চালান তিনি৷ পাশের গাঁয়ের বন্ধু তারই যার ছিল না মেয়ে মিমাংশার আশ্বাসে মেয়ে তুললো বাড়ি নিয়ে৷ ধান্দাবাজে ফন্দি করে সুযোগ তো এই বেলা চল্ না সবাই ধরবো গিয়ে উঠবে জমে খেলা৷ ঘণ্টাখানি তেল মাখিয়ে তুললো এমন গাছে ফুললো যেন ট্যাপার মত থামায় কেবা আছে? কৌশলেতে বাপ বলিয়ে আসলো যখন বশে বললো দাদা লাগাও বিয়ে দেখুক দেশে-দশে৷ বিয়ের তারিখ সিলেক্ট হল মাস ছিল বৈশাখ উলুর ধ্বনি সানাই সাথে বাজলো কতই শাঁখ৷ বরযাত্রী সে আর কজন গাঁয়ের লোকে এসে বিবাহ অন্তে ভোজন সারে দন্ত মেলে হেসে৷ সাঙ্গ হলে বিয়ের আসর চললো মেয়ে বাড়ি ভুতের বাপের শ্রাদ্ধে গেল গড়চা কাঁড়ি কাঁড়ি৷ প্রথম আসর জমলো ভালো ক্রমান্বয়ে শেষে আসল-বাপের প্রবল টানে নকল গেল ভেসে বললো সে তাই দুঃখ নিয়ে প্রবাদটা যে খাঁটি— দুগ্ধে-আমে যায় মিলে আর আঁস্তাকুড়ে আটি!!

মন্তব্য যোগ করুন

কবিতাটির উপর আপনার মন্তব্য জানাতে লগইন করুন।

মন্তব্যসমূহ
ফয়জুল মহী
২৮-০৫-২০২০ ১৯:৩২

  বেশ