আজ ২২ আষাঢ় ১৪২৭, মঙ্গলবার

মুক্তির প্রর্থনা
- মো. আব্দুর রাজ্জাক - ঘুনপোকা

বিকেলের পৃথিবীটা হয়ে উঠেছে স্তব্ধ হিমশীতল
মনে হচ্ছে ছোট্ট জাহাজে চেপে বসে আছি মাঝ সমুদ্রে!
তুমি বসে আছো উদাসীন মনে
তোমার দৃষ্টি অতি গভীরে!
ভাবছি, এ দৃষ্টির উৎস কোথায়?
কী তার ঠিকানা?
তাহলে কি তুমি আমি দু'জনেই ভগ্ন ঠিকানাহীন সৈনিক?

জানো তো!
অনীহার অদৃশ্য অন্ধকার গুহাদেশ অন্তরিকতাহীন, উত্তাপহীন,
হিমশীতল মৃত্যুর মতই অবাঞ্চনীয়
নির্বুদ্ধিতার সামিল!
তুমি কি হতে চাও পদ্মগন্ধী সেই বিষকণ্যা!

আমি কী একাই দোষী?
আর; তোমরা মেয়েরা নিছক আবেগের বসে
ভাবপ্রবনতার ঝোঁকে বিচরণ করো সুন্দর বাগানে,
তছনছ করে দাও সাজানো সব ডালি।

তোমাদের বদ্ধমূল ধারণা আমরা পুরুষ সমাজ
জঘৃণ্যভাবে অবিবেচক শাসক শ্রেণি!
ভালোবাসতে জানে না এতটুক?
সাধারণ সহানুভূতি রুচিবোধের অকল্পনীয় অভাব আমাদের!

ভাবতে পার! ঘৃনা কত গভীর, কত সূক্ষ্ম হতে পারে?
তপ্তলোহায় ঠিক সময়ে ঘা দেওয়াটা তোমাদের স্বভাব নয় কী?
স্নায়বিক উত্তেজনায় অশান্ত হয়ে উঠেছিল তোমার মন
তবুও আমি দোষি?


প্রতিটি বিদ্যুৎ চমকানির সঙ্গে সঙ্গে
দুমড়ে মুচড়ে যাওয়াটা বেশ স্বাভাবিক নয় কী?
এত অভিযোগ, অবিশ্বাস!
কী করে গড়বো আশার পৃথিবী?
আমার মনে হয়-
অভিযোগের মহা প্লাবনে আজই ধ্বংস হবে পৃথিবী।


ক্রমশই উদ্বিগ্ন হয়ে উঠছি আমি।
তোমার চেতনার উপরিপৃষ্ঠে
কোন ধারণাই দাড় করাতে পারছি না,
এ আমার ব্যর্থতা, দায় দেব না তোমায়।

শুধু ভুলে ভুলে, ভুলময় করে রেখেছি আমার এ ঘর
আজ বোধ হয়;
বিশ্ব জীবনে পার্থিব ক্ষয় যার যত বেশি
আত্তিক উন্নতি তার তত বেশি।

আর; যুক্তি বুদ্ধির নীরস জালে জর্জরিত হয়ে
প্রাণহীন বেঁচে থাকার চেয়ে প্রাণ হারানো ভালো।
আমাকে মুক্তি দাও, মুক্তি চাই।
মুক্তি দেবে নাকি?

মন্তব্য যোগ করুন

কবিতাটির উপর আপনার মন্তব্য জানাতে লগইন করুন।

মন্তব্যসমূহ
হিমেল তাওসিফ জয়
৩০-০৬-২০২০ ০১:৪৯

পড়ে বিদ্যুতের মত শিহরণ খেলে গেলো মাথায়.....

মো. আব্দুর রাজ্জাক
২৯-০৬-২০২০ ১৪:৩৮

আমার খুবই প্রিয় একটি কবিতা। বারবার পড়ি। পড়তে ভালো লাগে।