ভাই
- মিটু সর্দার ২২-০২-২০২৪

ভাই বড়ো ধন, রক্তের বাঁধন
কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে করে অসাধ্য সাধন।
এক পাতিলের খেয়ে ভাত --
এক কাঁথার নীচে কাটিয়েছে হাজার রাত।
মায়ের পরে বোনের স্থান, বাবা-র পরে ভাইয়ের
হাড়ভাংগা খাটুনি খেটে, রক্ত পানি করে গায়ের।
ঝড়ে যদি ভেঙে যায় বটবৃক্ষের ডাল --
ভাই ধরে সংসার নামক তরীর হাল।
সর্বগ্রাসী, সর্বনাশী নারী যদি হয় কাল --
ছিঁড়ে ফেলে তরীর শক্ত পাল।
যদিও হয় মা ভিন্ন, পিতার রক্ত কি আর হয় ছিন্ন
ভাইয়ে ভাইয়ে থাকে অটুট-অভিন্ন।
একসাথে বেড়ে উঠা, একসাথে খেলা --
ভাইয়ের কাঁধে চড়ে দ্যাখতে যায় বৈশাখী মেলা।
ভাইয়ের স্থান ভাইয়ের অলিন্দে --
কাল নাগিনী জুড়িয়ে দেয় ভাইয়ের সাথে ভাই দ্বন্দ্বে।
ধনসম্পদ,টাকাপয়সা হলে গড়মিল, হৃদয় হয় শক্ত
ভাই ঝরায় ভাইয়ের লোহিত রক্ত।
এদিক ওদিক হলে হিসেবের খাতা
ভাই ফাটায় ভাইয়ের মাথা।
সময়ের বিবর্তনে গায়ে জড়ায় ভিন্ন কাঁথা
রোদেলা দুপুরে মুখ থুবড়ে পড়লে ভাই ধরে মাথায় ছাতা।
গায়ের চামড়ায় বানিয়ে দিলে জুতা
ভাইয়ের ঋণ শোধ হবেনা, ধরিওনা ছুতা।

মন্তব্য যোগ করুন

কবিতাটির উপর আপনার মন্তব্য জানাতে লগইন করুন।

মন্তব্যসমূহ

এখানে এপর্যন্ত 0টি মন্তব্য এসেছে।