আজ ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০, সোমবার

দুটি কবিতা
- বিচিত্র কুমার

(০১)
সে
-বিচিত্র কুমার

একটা পুতুল পেয়েছিলাম শৈশবে,
ঠিক যেনো রূপকথার গল্পের নায়িকা ছিলো সে -
কে যেন আমার এক জন্মদিনে উপহার দিয়েছিলো;
সে পুতুল সব সময় আমার সাথে খেলা করতো:
সুখ-দুঃখ হাসি-কান্না দুষ্টুমিতে।

কয়েক বছর পর পুতুল টা -
হঠাৎ সে এক উড়ন্ত প্রজাপ্রতির রূপ নিলো;
এই বাগানে সেই বাগানে ফুরফুর করে উড়তো:
হাসি আনন্দ উল্লাসে।

আর আমি হলাম ভালোবাসার এক তরুণ শিল্পী
হৃদয় মন্দিরে এঁকেছিলাম তার মুখশ্রীর ছবি;
সে কোন এক বসন্তে বলেছিল - হাতে রেখে হাত
তুমি হতে পারবে আমার ভালোবাসার কবি।

তারপর থেকে সোহাগী ভাঙা স্টেশনে সে -
দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে আমার জন্যে অপেক্ষা করতো;
তার ভ্রমরকালো চুলগুলো ঝিরিঝিরি বাতাসে উড়তো
উতলা উতলা পড়ন্ত বিকেলে।

ইদানীং অবহেলায় অগুছানো যেন তুমি
ঠিক বদলে গেছো এই পৃথিবীর জলবায়ুর মতো;
এদিকে আমার হৃদয়ে অনাবৃষ্টি দেখা দিয়েছে
তবু এখনো তোমার অপেক্ষায় আছি।

(০২)
একেই বুঝি প্রেম বলে
-বিচিত্র কুমার

হঠাৎ করে তোকে দেখে প্রেমে পড়েছি
ঘুমের ঘোরে তোর কপালে চুমু খেয়েছি;
মনের সকল ইচ্ছেগুলো উড়িয়ে দিয়েছি
প্রেম আর ভালোবাসার মানে দুইটা জেনেছি।

ইচ্ছেগুলো হাতছানি দেয় ইচ্ছে নদীর তীরে
তোর হাতে হাত রেখেছি একটু ধীরে ধীরে;
বুঝিনি যে প্রেমের জ্বালা কঠিন জ্বালা রে
অশ্রু ঝরায় একলা নীরবে হৃদয় গভীরে।

তুই ফুরুত ফারুত উড়িস ফিরিস দেখিয়ে তনু গা
ইশারায় বলিস শুধু আদর করে যা;
তোর প্রেমেতে ভিজবে কবে আমার শরীর গা
সোনার নূপুর পড়িয়ে দিব তোর দুটি পা।

সেদিন থেকেই পড়বে মনে আমার কথা বেশি
যেদিন থেকে চুপিচুপি ভালোবাসার মধু খেয়েছি;
তোর মধ্যে সিন্ধু নদী প্রেমের নতুন মহাদেশ বুঝেছি
অন্ধকারে এক জলের ধারা খুঁজে পেয়েছি।

নামঃ বিচিত্র কুমার
গ্রামঃ খিহালী পশ্চিম পাড়া
পোস্টঃ আলতাফনগর
থানাঃ দুপচাঁচিয়া
জেলাঃ বগুড়া
দেশঃ বাংলাদেশ
মোবাইলঃ 01739872753

মন্তব্য যোগ করুন

কবিতাটির উপর আপনার মন্তব্য জানাতে লগইন করুন।

মন্তব্যসমূহ