রেশম নাশু
- মোঃ নাঈম মিয়া ২২-০৬-২০২৪

রেশম নাশু (পর্ব-২)
মোঃ নাঈম মিয়া

শেওলা ফুটে পাশের খালে যেন তরু তমাল
তাহা দেখেই তো আঁকিতে পারি নয়া রঙিন রুমাল।
রুমাল তো নয় দেখিতে যেন অগাধ ভালোবাসা
এ রুমালেই রঙ রাঙিয়ে ফুটায়ে তুলে আশা।
সকল আশা ভালোবাসা এই রুমালেই গেঁথে
কে যেন হায় চুম খেয়েছে আফসোসে খুব মেতে।
শুনতে পেলেম রুমেল নাম তার বাঙ্গচুঙ তার বাড়ি
স্বল্প টাকায় কিনিয়ে নিল হরেক রকম চুঁড়ি।
নিঁখুত রুমাল গড়িছে হাতে ফুটিয়ে আছে ফুল
রেষম দেয়া নয়কো রেশম নামটা হলো ভূল।
শাদির আলাপ কে যেন আজ দিল তাহার ঘরে
বিদায় বুঝি দিতে হবে বিবাহ নাম করে।

পলাশ ফুটে বকুল ফুটে, ফুটে কদম ফুল
পেলে তাহার পাপড়ি ছিড়ে মাখিয়ে নেবে চুল।
রেশম তেমন সাজন ভূষণ নয়কো ভালোবাসে
তবুও দেয় ফুল পাপড়ি গেঁথে মাথার কেশে।


আসবে আজকে দেখতে কণে শ্বশুরবাড়ির লোক
শুনেই যেন তাহার মাঝে উঠেছে উৎসুক।
পালিয়াছে বাপে মা এ এক মায়াবি কইতর
খাঁচা ছাইড়া যাইবে সে শূন্যে রাইখা ঘর।
নবীন তৃণের হুবু যেন আঁখিপল্লব তার
কাঁদিয়া কাঁদিয়া জল ফেলিয়া দিন হইলো সার।
ছাড়িয়া যাবে ঘর সংসার ছাড়িয়া বাপ মা
নবসংসার গড়বে রেশম সেদিক ভাবলো না।
গবেট দিকের রেশম কি আর সেদিক কিছু ভাবে
হু হু হু কাঁদিয়া এবার দিন কাটায়ে দেবে।
রেশম বানুর কাঁদন দেখে কাঁদে পড়শিগণে
লোহাও বুঝি গলিয়া যাবে তাহার ক্রন্দনে।

বরযাত্রী সব আসিলো বাড়ি কণে লয়ে যাবে
রেশম এবার চিন্তিচে খুব কবুল কইবে কবে।
কাজি সাহেব আইসা কইবে শুনো মা জননী
তিনেক বারে কওতো কবুল সাক্ষী আমি শুনি।

কাবিননামা লিখিতে হবে দাও তো দস্তখত
তবেই তুমি পদার্পিবে তোমার মারিফত।
বাপের বাড়ি ছাড়িয়া কইন্যা যাইবা শ্বশুরবাড়ি
দিন কাটাইয়ো ভালা কইরা সোয়ামির সেবা করি।
শ্বশুর শ্বাশুড়ি আছইন যারা কইরো সেবা তাদের
এভাবেই তো লিখিলো বিধি জীবন তোমাদের।
কাঁদিয়া রেশম বলিলো কবুল লিখিলো দস্তখত
নিজের বুঝি স্কন্ধে লইলো সংসার মারিফত।
বাপের বাড়ি ছাড়িয়া রেশম যাইবে চিরতরে
শ্বশুরবাড়ি যাইবে চলে বাবা মাকে ছেড়ে।
কাবিননামা লিখিয়া কাজি করিলো মুনাজাত
আল্লাহ তুমি থাইকো সদা দম্পতিদের সাথ।

কনকাঞ্জলি হইলো এবার পালকি মাঝে ছড়ে
রেশম যাইলো বাঙ্গেচুঙ সোয়ামির সঙ্গ করে।
শ্বশুরবাড়ি গিয়া রেশম সবারে সেলাম করে
নবরুপে নববধূর উল্লাসে প্রাণ ভরে।



বাঙ্গচুঙ– বানিয়াচং/ বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় গ্রাম।
গবেট– বোকা
কইতর– পায়রা/ কবুতর

রচনাকাল–১৯ শে জুলাই ২০১৮

মন্তব্য যোগ করুন

কবিতাটির উপর আপনার মন্তব্য জানাতে লগইন করুন।

মন্তব্যসমূহ

এখানে এপর্যন্ত 1টি মন্তব্য এসেছে।

AnandoNiloy
১৪-০৯-২০২৩ ১২:২৯ মিঃ

আপনারা যারা ওয়েবসাইটের পরিচালনায় আছেন,তাদের বলবো আরেকটা অফশন বাড়ানোর জন্য।কবিতা প্রকাশের জন্য গ্রন্থ নাম যোগ করার মাধ্যম প্রয়োজন।