অন্তর্যামী
- মুহাম্মদ আস্রাফুল আলম সোহেল ২৪-০৭-২০২৪

রোদেলা মিষ্টি সকাল ।
প্রজাপতি রঙিন ডানা মেলে উড়ে যায় ।
দোয়েল পাখির সুললিত কলকাকলি ।
নীল অপরাজিতার অপলক চাহনি ।
বন্য শ্বেত চন্দনের মাতাল ঘ্রাণ ।
কাশফুলের আলতো স্পর্শে অষ্টাদশীর প্রাণের উচ্ছ্বাস ।
স্বচ্ছ জলের সরোবরে রাজহংস যুগলের নিবিড় আলাপন ।
জীবন্ত ঘৃতকুমারীর মোহনীয় সতেজতা ।
শরতের নীলিমায় মিশে যায় শুভ্র তুলা মেঘ ।
বেত্তুন ফলের রসালো শাঁসের অমৃত স্বাদ ।
প্রকৃতির অপরূপ সৌন্দর্যের মুগ্ধতা ।
কার না ভাল লাগে?
তবে, কখনও প্রকৃতি হয় বেপরোয়া বা উদাসীন ।
ক্ষণিকেই ঝড়ের ঘনঘটা ।
এক অশনি সংকেত!
নিকষ কালো অন্ধকারে চারিদিক আচ্ছন্ন ।
ধূলিময়, ঝড়ো শীতল হাওয়া ।
ঝড়ের নৃশংস তাণ্ডব ।
হিংস্র বজ্রপাতের ভয়ঙ্কর দুর্দান্ত প্রতাপ ।
চমকে উঠে পিলে ।
মৃত্যু ভয় তাড়িত করে ।
জীবনের প্রতি অসীম মায়া ।
তবুও প্রকৃতির কাছে মানুষ অসহায় ।
বেঁচে থাকার তীব্র আকুতি ।
নত মস্তিষ্কে স্রষ্টার কাছে প্রার্থনা ।
ক্ষমা কর, রক্ষা কর ।
হে মহান প্রভু— শান্তি দাও ।
একমাত্র তুমিই আমাদের রক্ষাকর্তা ।
এই বিশ্বব্রহ্মাণ্ডের নিয়ন্ত্রক ।
শান্ত হয় প্রকৃতি ।
মহান সৃষ্টিকর্তার অপরিমেয় শক্তির এ এক শাশ্বত দৃষ্টান্ত ।
এই বহমান জীবনকালে মানুষ যে যার মতই ব্যস্ত ।
কখন যে আকাশের রঙ বদলায়— কেউ জানে না ।
তেমনি, মানুষের মনে কখন যে পরিবর্তন ঘটে— সে নিজেও জানে না ।

মন্তব্য যোগ করুন

কবিতাটির উপর আপনার মন্তব্য জানাতে লগইন করুন।

মন্তব্যসমূহ

এখানে এপর্যন্ত 0টি মন্তব্য এসেছে।