আজ ৩১ আষাঢ় ১৪২৬, সোমবার

আগমনী
- কাজী নজরুল ইসলাম---অগ্নিবীণা

একি রণ-বাজা বাজে ঘন ঘন– ঝন রনরন রন ঝনঝন! সেকি দমকি দমকি ধমকি ধমকি দামা-দ্রিমি-দ্রিমি গমকি গমকি ওঠে চোটে চোটে, ছোটে লোটে ফোটে বহ্নি-ফিনিকি চমকি চমকি ঢাল-তলোয়ারে খনখন! একি রণ-বাজা বাজে ঘন ঘন রণ ঝনঝন ঝন রণরণ! হৈ হৈ রব ঐ ভৈরব হাঁকে, লাখে লাখে ঝাঁকে ঝাঁকে ঝাঁকে লাল গৈরিক-গায় সৈনিক ধায় তালে তালে ওই পালে পালে, ধরা কাঁপে দাপে। জাঁকে মহাকাল কাঁপে থরথর! রণে কড়কড় কাড়া-খাঁড়া-ঘাত, শির পিষে হাঁকে রথ-ঘর্ঘর-ধ্বনি ঘররর! 'গুরু গরগর' বোলে ভেরী তূরী, 'হর হর হর' করি চীৎকার ছোটে সুরাসুর-সেনা হনহন! ওঠে ঝন্‌ঝা ঝাপটি দাপটি সাপটি হু-হু-হু-হু-হু-হু-শনশন! ছোটে সুরাসুর-সেনা হনহন! তাতা থৈথৈ তাতা থৈথৈ খল খল খল নাচে রণ-রঙ্গিণী সঙ্গিনী সাথে, ধকধক জ্বলে জ্বলজ্বল বুকে মুখে চোখে রোষ-হুতাশন! রোস্ কোথা শোন্! ঐ ডম্বরু-ঢোলে ডিমিডিমি বোলে, ব্যোম মরুৎ স-অম্বর দোলে, মম-বরুণ কী কল-কল্লোলে চলে উতরোলে ধ্বংসে মাতিয়া তাথিয়া তাথিয়া নাচিয়া রঙ্গে! চরণ-ভঙ্গে সৃষ্টি সে টলে টলমল! ওকি বিজয়-ধ্বনি সিন্ধু গরজে কলকল কল কলকল! ওঠে কোলাহল, কূট হলাহল ছোটে মন্থনে পুন রক্ত-উদধি, ফেনা-বিষ ক্ষরে গলগল! টলে নির্বিকার সে বিধাত্রীরো গো সিংহ-আসন টলমল! কার আকাশ-জোড়া ও আনত-নয়ানে করুণা-অশ্রু ছলছল! বাজে মৃত সুরাসুর-পাঁজরে ঝাঁজর ঝম্‌ঝম, নাচে ধূর্জটি সাথে প্রমথ ববম্ বম্‌বম্! লাল লালে-লাল ওড়ে ঈশানে নিশান যুদ্ধের, ওঠে ওঙ্কার রণ-ডঙ্কার, নাদে ওম্ ওম্ মহাশঙ্খ বিষাণ রুদ্রের! ছোটে রক্ত-ফোয়ারা বহ্নির বান রে! কোটি বীর-প্রাণ ক্ষণে নির্বাণ তবু শত সূর্যের জ্বালাময় রোষ গমকে শিরায় গম্‌গম্! ভয়ে রক্ত-পাগল প্রেত পিশাচেরও শিরদাঁড়া করে চন্‌চন্! যত ডাকিনী যোগিনী বিস্ময়াহতা, নিশীথিনী ভয়ে থম্‌থম্! বাজে মৃত সুরাসুর-পাঁজরে ঝাঁঝর ঝম্‌ঝম্! ঐ অসুর-পশুর মিথ্যা দৈত্য-সেনা যত হত আহত করে রে দেবতা সত্য! স্বর্গ, মর্ত, পাতাল, মাতাল রক্ত-সুরায়; ত্রস্ত বিধাতা, মস্ত পাগল পিনাক-পাণি স-ত্রিশূল প্রলয়-হস্ত ঘুরায়! ক্ষিপ্ত সবাই রক্ত-সুরায়! চিতার উপরে চিতা সারি সারি, চারিপাশে তারি ডাকে কুক্কুর গৃহিনী শৃগাল! প্রলয়-দোলায় দুলিছে ত্রিকাল! প্রলয়-দোলায় দুলিছে ত্রিকাল!! আজ রণ-রঙ্গিণী জগৎমাতার দেখ্ মহারণ, দশদিকে তাঁর দশ হাতে বাজে দশ প্রহরণ! পদতলে লুটে মহিষাসুর, মহামাতা ঐ সিংস-বাহিনী জানায় আজিকে বিশ্ববাসীকে– শাশ্বত নহে দানব-শক্তি, পায়ে পিষে যায় শির পশুর! ‌‌'নাই দানব নাই অসুর,– চাইনে সুর, চাই মানব!'– বরাভয়-বাণী ঐ রে কার শুনি, নহে হৈ রৈ এবার! ওঠ্ রে ওঠ্, ছোট্ রে ছোট্! শান্ত মন, ক্ষান্ত রণ!– খোল্ তোরণ, চল্ বরণ করব্ মা'য়; ডর্‌ব কায়? ধরব পা'য় কার্ সে আর, বিশ্ব-মা'ই পার্শ্বে যার? আজ আকাশ-ডোবানো নেহারি তাঁহারি চাওয়া, ঐ শেফালিকা-তলে কে বালিকা চলে? কেশের গন্ধ আনিছে আশিন-হাওয়া! এসেছে রে সাথে উৎপলাক্ষী চপলা কুমারী কমলা ঐ, সরসিজ-নিভ শুভ্র বালিকা এল বীণা-পাণি অমলা ঐ! এসেছে গনেশ, এসেছে মহেশ, বাস্‌রে বাস্! জোর উছাস্!! এল সুন্দর সুর-সেনাপতি, সব মুখ এ যে চেনা-চেনা অতি! বাস্ রে বাস্‌ জোর উছাস্!! হিমালয়! জাগো! ওঠো আজি, তব সীমা লয় হোক। ভুলে যাও শোক– চোখে জল ব'ক শান্তির– আজি শান্তি-নিলয় এ আলয় হোক! ঘরে ঘরে আজি দীপ জ্বলুক! মা'র আবাহন-গীত্ চলুক! দীপ জ্বলুক! গীত চলুক!! আজ কাঁপুক মানব-কলকল্লোলে কিশলয় সম নিখিল ব্যোম্! স্বা-গতম্! স্বা-গতম্!! মা-তরম্! মা-তরম্!! ঐ ঐ ঐ বিশ্ব কণ্ঠে বন্দনা- বাণী লুণ্ঠে-'বন্দে মাতরম্!!!'

মন্তব্য যোগ করুন

কবিতাটির উপর আপনার মন্তব্য জানাতে লগইন করুন।

মন্তব্যসমূহ