আজ ৮ অগ্রাহায়ণ ১৪২৬, শুক্রবার

প্রজার সাথে চুক্তি
- মেহেদী হাসান সাকিব

সে পালোয়ান মস্ত রাজা,
সে যে প্রজার দায়,
স্বপ্ন দেখা মানা নাকি এই দেশেতে হায়।
রাজার গোফের তেলে নাকি,
স্বপ্ন গুজে রয়,
রাজ পালোয়ান সবাই নাকি,
স্বপ্ন কিনে লয়,
প্রজার হাতে স্বপ্ন দেবে,
স্বপ্ন এতোই সস্তা?
স্বপ্ন রাজা রাখে কোথায়!
কই সে ঘরের রাস্তা?

স্বপ্ন জমা করছে ভীষন,
করছে ভীষন রোগ,
এই রোগেরও স্বপ্ন দেখা!
রাজার হলো ভোগ।
রোগের ওষুধ স্বপ্নে পেল,
রাজ মহাশয় সেদিন,
সাতসাগরের মাঝে নাকি,
অাছে বিশাল কালিন,
সেই কালিনে যেতে হবে
রূপকথার এক রাজ্যে,
সেই দেশেরই রাজকণ্যা,
রোগের ওষুধ ভাজ্জে।

স্বপ্ন দেখে রাজমহাশয়ের,
চিন্তা নতুন সাজ্জে,
হাতের কাছের স্বপ্ন যে আজ
রূপকথারই রাজ্যে!

কি হবে হায়,
কি হবে হায়, রাজমহাশয় একি!!
বিছানা ছেড়ে ছেড়ে উঠতে যাবেন
মানুষ নাকি ঢেকি!
এদিক ওদিক ডাক পড়ে যায়,
রোগের হলো ভোগ,
স্বপ্ন গুদাম উজাড় করো
রোগের আনো রোধ।

হাকিম এলো, তড়ঘড়িয়ে
উজির তারো আগে,
তাজা স্বপ্নের গন্ধ নিলেই,
এই সে ব্যামো যাবেই।

স্বপ্ন গুদাম খুললো উজির,
এ দেখি হায় খালি,
সেই গুদামে পড়ে আছে,
নীলচে সাদা বালি,
উপায় এখন! কি করা যায়!
স্বপ্ন কোথা পায়!

তাজা সে যে স্বপ্ন অাকাল,
প্রজার কাছে আছে?
টাটকা তাজা, নতুন নতুন,
স্বপ্ন ফেলা খাচে?
প্রজার মাঝে ডাক পড়ে যায়,
নিলাম স্বপ্ন কেনার,
দামের দরে পাক্বা দেখা,
তরুন স্বপ্ন সোনার।
যে স্বপ্নে বাচতে পারে
রাজার স্বপ্ন বোনা।
সে স্বপ্ন কিনবে বলে এলান দিলো মোলা।

স্বপ্ন কেনা বিফল গেলো,
কেউ সে দোষে দোষী?
রাজারই সে কসুর সে যে
স্বপ্নঘরের পেশী!!

রাজা তো সেই মরল শেষে,
স্বপ্ন হলো মুক্তি।
স্বাধীনতার স্বপ্ন করে
প্রজার সাথে চুক্তি।

(মেহেদী)
০২/০৫/১৯
ভোর ৪:০৩ মি:

মন্তব্য যোগ করুন

কবিতাটির উপর আপনার মন্তব্য জানাতে লগইন করুন।

মন্তব্যসমূহ