আজ ২৮ আষাঢ় ১৪২৭, সোমবার

গজমোতির হার
- সোহরাব হোসেন - বেলা অবেলা

সোনা-দানা দামি, নীলকান্তমণি
কত কীযে দামি আছে!
পরশপাথর, জামরুদ হারে
জ্ঞান গরিমার কাছে।
মুত্তাকীর মন মেহনতে ডুবে
হয়ে থাকে মশগুল,
পীড়িত যেজন বুঝে সে কেবল
স্বাস্থ্যই সুখের মূল।

জীবন বাঁচাতে ডুবেছি বায়ুতে,
তৃষ্ণায় সুপেয় জল,
উদরের চেয়ে কীবা আছে বড়!
বুঝে ক্ষুধার্তের দল।
বিত্তে যার ক্ষুধা চিত্তে বেড়ে যায়
যে পেয়েছে চায় আরো,
দুঃখীর ক্ষরণ বায়বীয় তবু
রক্তের চেয়েও গাঢ়।

খ্যাতির গরিমা, যশের মহিমা
কীবা তার সমকক্ষ!
সম্পর্ক সুধায় না জুড়ালে মন
বিদীর্ণ হয় যে বক্ষ।
সবচে দুর্লভ লোভনীয় ধন
মনের মানুষ ও মন,
জগতের বুকে প্রিয়হারা বুঝে
কেউ কারো নয় আপন।

নিরবধি এই সময়ের ডাক
শুনতে কি তুমি পাও?
নেই তো উপায় যেতে যে হবেই
দামি সব ভুলে যাও।
থেমে যাই শুধু তুমি আর আমি
থেমে নেই মহাকাল,
সোনা-হীরা-জল, যত কিছু বল
জগতের মায়াজাল।

সবচেয়ে দামি বুঝা বড় দায়
নীরবে বইলো সময়,
একবার গেলে পুনশ্চ না মিলে
ভুলে হয়ে যায় মৃন্ময়।
উদাসীন হয়ে অতল সময়ে
বাড়িও না দেনা ভার,
হীরা জহরতে, কোন বিনিময়ে
ফেরে না সময় আর।

অতীতের মাঝে বিচরণ আর
ভবিষ্যৎ নিয়ে ভাবনা,
হেলায় কাটলো বহমান কাল
বয়ে গেল, যায় যাক না!
ভাবী-অতীতের এ বিভেদতল;
বর্তমান হলো খাসা,
যেই পথ দিয়ে ভবিষ্যৎ এসে
অতীতে বাঁধলো বাসা।

পিছনের শত ফেলে আসা পথ
হেঁটেছ যেপথ সুদীর্ঘ,
চৌরাস্তার মোড়ে বেছে নাও পথ
একটা পথেই মহার্ঘ।
এখন তোমার দশদিক খোলা
হয়ে আছে সব ধাঁধা,
উন্মোচন করো আপন খেয়াল
যেই সুর খুঁজ জাদা।

অতীত-হতাশা হবে সব ম্লান
হাসি-গান হলে যোজন,
বিরস সময় হবে মধুময়
অনুভবে পরিশোধন।
মুঠোয় তোমার সম্ভাবনা বীজ
বপন করিলে আজ,
সুফল আসবে শোভা হয়ে শিরে
আগামী দিনের তাজ।

ঝিনুকের বুকে অপাংক্তেয় অণু
হয়ে যায় দামি মোতি,
অনুভবে মাতাও তোমার সময়
মিলবে সুখের দ্যুতি।
বহমান এই কালের ঝিনুকে
মণিমুক্তা রাখা গুঁজে,
কাজে আর গানে কুড়াও সেসব
নাও তার সব খুঁজে।

নিবিড় সাধনে গেঁথে যাও মালা
করে যাও সমাহার,
মৃত্যু ছুঁয়ে যাবে শীতল পরশে,
রেখে যাও উপহার।
সময়ের রথে মণিহার যতো
সর্বস্ব লুটাও তার,
তোমার অর্জনে হোক পরিপূর্ণ,
জয় হোক সভ্যতার।

৩১ জুলাই, ২০১৮
পতেঙ্গা, চট্টগ্রাম।

মন্তব্য যোগ করুন

কবিতাটির উপর আপনার মন্তব্য জানাতে লগইন করুন।

মন্তব্যসমূহ