আজ ২২ চৈত্র ১৪২৬, রবিবার

আগুন হতে বস্তি বাঁচাও
- এস আই তানভী

.
কেউ ছাড়ে নি গ্রাম, আকাশ ছোঁয়া স্বপ্ন নিয়ে,
দিন কি রাত; ঝরায়ে ঘাম- শহর যায় রঙিয়ে–
কেউবা চালায় রিক্সা-ভ্যান, কেউবা চালায় ঠেলা গাড়ি,
মুচি কাজেও অনেক জন! কেউবা চালায় ট্রাক- লড়ি।
কলকারখানায়, শ্রমিক যত— তারাও যে গ্রামের মানুষ,
তাদের দেহে-ই হয় যে ক্ষত; শহর উড়ায় রঙের ফানুস।
বেচেন যিনি শাম্পাপুড়ি কিংবা ফেরিওয়ালা,
মাথায় নিয়ে সব্জি-ঝুড়ি সে'ওতো গ্রামওয়ালা।

নারীরাও আজ নেই তো গ্রামে; শহর সাজায়- র'য় শহরে,
শহরের পোষাক তাদের ঘামে, হয় যে ধোয়া প্রথম প্রহরে।।
প্রকান্ড প্রাসাদে ঝিঁ-এর কাজে, যে নারীটা যাচ্ছে খেটে–
সকাল-দুপুর কিংবা সাঁঝে; সে-ও যে এসেছে গ্রাম রেখে।।

আবার প্রাসাদ গড়ার রাজমিস্ত্রী– কুলি-মজুর; যোগালি!
সঙ্গে নিয়ে ছেলে-মেয়ে, স্ত্রী– দিন কি তাদের খুব সোনালী?
শহরের সড়ক, মাঠ-ঘাট, রাজপথ আর যত দালান কোঠা
সবখানে লেগেছে তাদের হাত, লেগে আছে ঘামের ফোটা–
দিনের শেষে সব ক্লান্ত দেহ– চায় যে একটুখানি বিশ্রাম,
শহরের অদূরে মাখায়ে মোহ; খোঁজে একটুখানি আরাম।

রাতেরবেলা একটুখানি সুখ পেতে
যা-তা দিয়ে গড়েছে ছোট ছোট ঘর,
ঘরের সংখ্যা বেড়ে- পরিণত বস্তিতে,
কত প্রাণ একসাথে! ভুলে আপন-পর।

গ্রাম ছেড়েছে শহর সাজাতে; আজ শহর ছাড়ছে আগুনে–
আহ! আপন আপন প্রাণ বাঁচাতে; ছুটছে সবাই নিঃস্ব প্রাণে।
বস্তি শুধু জ্বলছে না– জ্বলছে তাদের কাচা বুক;
বস্তি শুধু জ্বলছে না— জ্বলছে তাদের চোখ-মুখ।
বস্তি শুধু জ্বলে না একে একে– জ্বলে তাদের বেঁচে থাকার স্বপ্ন,
কাচা বস্তির গায়ে আগুন দিয়ে– শহর গুলো কিভাবে হবে ধন্য?

শহর থেকে গ্রামের মানুষকে; কেউ কি করছো গ্রাম ছাড়া?
কে সাজাবে এই শহরকে– দুঃখ-কষ্টে গ্রামে-ই থাকলে তারা?
কিংবা তারা করলে ধাওয়া! লাঙল কোদাল দিয়ে–
বন্ধ হবে সকল পাওয়া, পালাবে তখন কোথায় গিয়ে?

বস্তি বাঁচাও শহরবাসী, আছে যে তার প্রয়োজন-
বন্ধ হলে বস্তিবাসীর হাসি; উঠবে জ্বলে সব ধন।
অনাকাঙ্ক্ষিত অগ্নিকাণ্ড হতে বস্তিগুলো সব টিকে থাকুক,
বস্তিবাসী মানুষগুলোর মুখ থেকে সর্বদা হাসি খুশি ঝরে পড়ুক।
--------------------
১২/০৩/২০২০
–এস আই তানভী ✍

মন্তব্য যোগ করুন

কবিতাটির উপর আপনার মন্তব্য জানাতে লগইন করুন।

মন্তব্যসমূহ
এস আই তানভী
১২-০৩-২০২০ ০৯:৩৯

আগুন হতে বস্তিকে না বাঁচাতে পারলে সভ্যতার কিছু টিকে থাকতে পারবে না।