আজ ১ ভাদ্র ১৪২৯, মঙ্গলবার

দেনা পাওনা
- মোঃ আব্দুল্লাহ্ আল মামুন - মোঃ আব্দুল্লাহ আল মামুন

দেনা পাওনা
- মোঃআব্দুল্লাহ্ আল মামুন
যুবতীর রূপ ছিল
রূপের দম্ভে পা পরিত না মাটিতে।
যৌবন ছিল নূতন,
সব কিছুই রঙ্গিন চশমাতে দেখতো সে।
গুণ সেটা যেমন তেমন।
মানুষের চাইতে টাকার দাম ছিল বেশি।
ভাবত সে রূপবান।
তার পায়ের তলে সব লুটাবে।
সে তো সব ।
ছেলেটি ছিল মস্ত রসিক।
টাকা ওড়ানো ছিল খেলার মত।
হোটেলে ,রেস্তোরায় মাস্তি সারা বেলা ।
মেয়েটির জন্য মনটা কেমন করে উঠলো
এক দেখাতেই পাগল পারা ।
মস্ত বড় কেক কেটে জন্মদিন পালন
শুরু হল লুতু পুতু প্রেম ,খুনসুটি।
রাগ অভিমান, চাওয়া পাওয়ার খেলা।
মেয়েটি যা চায়।
তাই কিনে দিতে বড্ড পটু ছেলেটি ।
খরচের লম্বা হাত তার ।
ভালবাসা দিবস ,
আর রোজ ডে ।
কোন দিবস যায় না খালি হাতে।
উপহারের বস্তা আসে মেয়েটির হাতে।
মেয়েটি ছিল আহলাদি ।
ছেলেটি ছিল বড্ড জেদি।
মেয়েটার সব চাই।
টাকা,পয়সা ,উপহার ,প্রেম।
ছেলেটার দেহ চাই।
এটা চুমু ,গরম নিস্তব্ধ দেহে ।
তার পর বন্ধুর বাড়িতে একান্ত সাক্ষাৎকার।
কাছাকাছি থেকে পাশাপাশি ।
পাশাপাশি থেকে এক কাথার নিচে।
একটি খাট, একটি করুন ইতিকথা।
চারদিকে কাথাটা ধরে কি সে টানাটানি।
নিদ্রাহীন এক দুপুর ।
যুবক যুবতির খেলা ,
দেনা পাওনার কি করুন শোধ।
নেই কোন প্রতিরোধ।
অতঃপর ছেলেটি কে আর দেখা গেল না
মেয়েটির সাথে,
কি এক ঝগড়া শেষে,
সম্পর্কটা ইতিহাসের পাতায় নাম লিখিয়েছে
মেয়েটি বলল এখন ,
তোমার টাকা কে ভালবাসিনি ।
তোমাকেই চেয়েছি,বার বার।
ছেলেটির কথা ,
আমাকে ফকির করে ,
অভিনয় করছিস এবার?
এই জামা ,উপহার ,
রক্ত আমার বাবার ,
সব দিয়েই প্রেম কিনেছি ,
নষ্ট প্রেম ,
তার সাথে মন এলো কিভাবে?
মন দেওয়া নেওয়া করিলে।
লাগিত তোর দিলে,
যখন আমার টাকা খরচ হয়েছে জলে।
জলের মত করে।
তখন তো লোভ টাই ছিল।
এখন মন কোথায় থেকে এল?

মন্তব্য যোগ করুন

কবিতাটির উপর আপনার মন্তব্য জানাতে লগইন করুন।

মন্তব্যসমূহ