আজ ১৩ আষাঢ় ১৪২৬, বৃহস্পতিবার

শান্তি মানে
- Md. Osmangani shuvo

শান্তি মানে
মনের কুটিরে নির্মল শিহরণের স্থায়ী উপস্থিতি।

শান্তি মানে
দুনিয়ার দোলনায় দোল খেতে খেতে মায়ের আদর বাবার শাসন।

শান্তি মানে
বেঁতের ঝুলন্ত দোলনায় লুটোপুটি-হুটোপুটি খেতে খেতে
মায়ের অম্লান বদনে খাঁমচি কাঁটা।

শান্তি মানে
আদর্শলিপির বই নিয়ে আদর্শ শিশুর মতো স্কুলের বারান্দায় বসে থাকা।

শান্তি মানে
স্কুল পালিয়ে মারবেল-ক্রিকেট-ফুটবল খেলার অতীব সুখময় অনুভূতির স্মৃতি।

শান্তি মানে
শৈশবের উন্মত্ততায় সুখী পরিবারে অসুখের ভর করা।

শান্তি মানে।
উল্লাসে ফেটে পড়া মানুষের হাসি দর্শন।

শান্তি মানে
পৃথিবী থাকবে শান্ত,আর কেউ হবে না ধর্ষণ-গণধর্ষণ।

শান্তি মানে
খেলাধুলা,কাঁদায় মাছ ধরা আর অকারণে হেসে কুটিকুটি হওয়া।

শান্তি মানে
বোনের চোখে হাজার তারার ঝিঁকিমিকি স্বপ্নময় কল্পনাবিলাসের ছবি।

শান্তি মানে
কুটিরের হাঁসমুরগী তাড়াতে গিয়ে মুরগীর আঁচড়ে আহত অথবা ক্ষত-বিক্ষত হওয়া।

শান্তি মানে
শৈশব থেকে লাফ দিয়ে কৈশোরে পদার্পণ করা।

শান্তি মানে
কিছু না পাওয়া ইচ্ছার প্রতি অনাবিল পাপাশক্তি।

শান্তি মানে
বাবার পেছনে হেঁটে হেঁটে হাটে যাওয়া।

শান্তি মানে
বাবার পেছনে হেঁটে হেঁটে মাঠে যাওয়া।

শান্তি মানে
বাবার পেছনে হেঁটে হেঁটে পুকুরঘাটে যাওয়া।

শান্তি মানে
বাবার কাছে পুকুরে চোবানি খাওয়া।

শান্তি মানে
স্কুল পালিয়ে পুকুরে অসহ্য সাঁতার কাটা।

শান্তি মানে
শান্তির দূত কপোত-কপোতিদের পোষ মানানো।

শান্তি মানে
ঝিঁঝিঁ পোকার পেছনে সুতা বেঁধে উড়িয়ে দেওয়া।

শান্তি মানে
অন্যের ঘুড়ি কেঁটে আনন্দই উল্লাসিত হওয়া।

শান্তি মানে
কৈশোর হতে যৌবনে পা দেওয়া।

শান্তি মানে
সফেদ জলের ভিতর ছোট তিতপঁটির লুকোচুরি খেলা
দেখা।

শান্তি মানে
সাদা পায়রার চিরশান্তির আকাশে ডানাঝাঁপটে উড়া।

শান্তি মানে
বাবা মায়ের ছেলেমেয়েকে নিয়ে দেখা অধরা স্বপ্ন পূরণ।

মন্তব্য যোগ করুন

কবিতাটির উপর আপনার মন্তব্য জানাতে লগইন করুন।

মন্তব্যসমূহ