অ-নামিকা
- আজমাইল ২৩-০৫-২০২৪

অপরূপা তুমি, অনন্যা তুমি, রূপে-গুণে তুমি শ্রেয়া
উন্মাদ করে হৃদয়ের গাঙে ভাসালে প্রেমের খেয়া!
যেমন করে গগণের গাঙে মেঘের লহরী ওঠে,
তেমনি নিতি তব মুখখানি আমার হিয়ায় ফোটে!

যতবার দেখি মেটে না তো সাধ, দেখে দেখে হ‌ই সারা
যদি-বা আড়াল হলে গো তুমি লাগি আমি দিশেহারা!
বরষার নীরে স্নাত হতে দোঁহে বড় সাধ মনে জাগে
তুমি যে সখী রয়েছ আমার হৃদয়-রক্তরাগে!

গগণের পানে চেয়ে চেয়ে দেখি ধরাধরি মেঘ খেলে,
ভুলে যেতে চাই তোমারে আমি আনমনে অবহেলে!
প্রকৃতির বুকে ধরা দিয়ে তুমি কানে কানে যেন বলো,
কলম তুলে কাব্যসাগরে মহাকল্লোল তোলো!

ঊর্মির মতো বুকে বেজে ওঠো দাও না তবুও দেখা,
স্মৃতির পটে ওঠে যে ফুটে তোমার স্মৃতির রেখা!
জানি আমি মোর ভাগ্যাকাশে উঠবে না সুখ-রবি,
আঁকিতে তাই গো চাই না হৃদয়ে তোমারি মুখচ্ছবি!

আমি প্রকৃতির মাঝে সুখ খুঁজে চলি,
কবিতার সাথে যত কথা বলি!
ওর সনে অনেক আগেই গেছে হয়ে অমর প্রেম,
তাই তোমারে পেয়ে চাহি না লভিতে অমূল্য হেম!
কলিকাতা - ১৪৪, ২৯/১১/২০২২

মন্তব্য যোগ করুন

কবিতাটির উপর আপনার মন্তব্য জানাতে লগইন করুন।

মন্তব্যসমূহ

এখানে এপর্যন্ত 1টি মন্তব্য এসেছে।

faizbd1
২৩-০৯-২০২৩ ০১:০৪ মিঃ

বেশ ভালো লিখেছেন শুভেচ্ছা শুভ কামনা রইল ।

সেখ আজমাইল
২৩-০৯-২০২৩ ০১:১২ মিঃ

ধন্যবাদ, সুধী!
এভাবেই পাশে থাকবেন— এই আশা
বুকে নিয়ে বাঁচি, বেদনায় আঁখিধার রুধি
এই কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপনের ভাষা
ধন্যবাদের চেয়ে
ভালো শব্দ নাহি আসতেছি এবে মম হৃদয় বেয়ে॥